সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১০:১১ পূর্বাহ্ন

৮ মাস ধরে রয়েছে পলিথিনে মোড়ানো এ্যাম্বুলেন্স

রিপোর্টারের নাম / ১৪৮ বার দেখা হয়েছে
আপডেট করা হয়েছে



বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি:
সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সচল এ্যাম্বুলেন্সটি ৮ মাস ধরে অকেজ হয়ে পলিথিন দিয়ে মোড়ানো রয়েছে। এতে এই উপজেলার প্রায় সাড়ে ৩ লাখ মানুষ এ্যাম্বুলেন্স সেবা থেকে বঞ্চিত রয়েছে।
সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারী) সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এলাকায় সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পুরাতন বিল্ডিংয়ের পাশে পলিথিন দিয়ে মোড়ানো অবস্থায় এ্যাম্বুলেন্সটি পড়ে রয়েছে। চারটি চাকার ভিতরে ২ টি চাকা নেই। দূর্ঘটনায় এ্যাম্বুলেন্সের সামনের অংশটি পুরোটাই ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে গেছে । একেবারে চলাচলের জন্য অযোগ্য হওয়ার কারণে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তৃপক্ষ তা পলিথিন দিয়ে জড়িয়ে রেখেছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সুত্রে জানাযায়, ২০২৪ সালের জুন মাসে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে একটি রোগী নিয়ে ঢাকা গেলে সেখান থেকে ফেরার পথে টাঙ্গাইলে এসে সড়ক দূর্ঘটনার স্বীকার হয়ে এম্বুলেন্সটির ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়। যার কারণে পুরো এ্যাম্বুলেন্সটি একেবারে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পরে। ওখান থেকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ উদ্ধার করে নিয়ে এসে এ্যাম্বুলেন্সটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাঙ্গনে পলিথিন দিয়ে মুড়িয়ে রাখেন ।

বেশ কয়েকজন রোগীর সাথে কথা বললে তারা জানান, এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দুটি এ্যাম্বুলেন্স আছে। তার মধ্যে নতুন যেটি ছিল সেটি বর্তমানে এক্সিডেন্ট করে অকেজ হয়ে পলিথিন দিয়ে জড়িয়ে রাখা আছে। আর একটি পুরাতন তা দিয়েই রোগী পরিবহন করা হচ্ছে। তবে সেটির সার্ভিস ভালো না হওয়ার কারণে জরুরি রোগী পরিবহন করা কষ্ট সাধ্য হয়ে গেছে। বেশীর ভাগ সময় নষ্ট হয়ে পরে থাকতে দেখা যায়। তাই অনেক সময় বাহির থেকে এ্যাম্বুলেন্স ভাড়া নিয়ে রোগীকে হসপিটালে পৌঁছাতে হয়। এতে খরচও বেশী হয়। তাই এ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অতিদূত একটি নতুন এম্বুলেন্স দরকার। তা না হলে এ অঞ্চলের মানুষের রোগী নিয়ে বিপাকে পরে থাকতে হবে ।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ একেএম মোফাখখারুল ইসলাম জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুটি এ্যাম্বুলেন্সের মধ্য নতুনটি দূর্ঘটনার স্বীকার হয়ে অকেজ হয়ে গেছে। আপাতত আমরা পুরাতনটা মেরামত করে কোনমত রোগী পরিবহন করছি। কিন্তু সেটির সার্ভিসটা সন্তোষ জনক নয়। এ অঞ্চলটি জনবহুল হওয়ার কারণে অতিসত্বর একটি নতুন এ্যাম্বুলেন্স দরকার। আমরা একটি নতুন এ্যাম্বুলেন্সের চাহিদা আমাদের উর্ধতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। এখন কতোদিন নাগাদ তা পাবো এটি জানা নেই।

এবিষয়ে কথা বলার জন্য জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার রাম পদ রায়ের সাথে মুঠোফোনে একাধিক বার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তার ফোনটি বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
Theme Created By Limon Kabir